আজ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আমি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলছি

স্টাপ রির্পোটার ইলিয়াছ মিয়া :আমি বীরের খেতাবে ভূষিত হতে চাইনি
আমি মন্ত্রীত্ব বা রাষ্ট্রপ্রধান হতে চাইনি
আমি চেয়েছিলাম বাঙ্গালীর মুক্তি
বাংলার আকাশে উড়া লাল সবুজের স্বাধীনতার পতাকা, আমি পেয়েছিলাম বটে
তুমুল উন্মাদনায় পশুপাখিদের মতো হত্যা করেছিলাম ভিনদেশী নরপিশাচদের।
জন্মভুমি টাংগাইলকে হানাদার মুক্ত করে
ভারতীয় বাহিনীর সাহায্য ব্যতিরেকেই ঢাকা আক্রমনের প্রস্তুতি সম্পর্ন করেছিলাম। মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সমরনায়ক হিসেবে টাইগার খ্যাত বঙ্গবীর উপাধী দিয়ে ভূষিত করেছিলেন আমাকে এদেশের স্বাধীনতাকামী জনগন
তারুন্যের তেজ্বদীপ্ত ঝাকড়া চুলে রাইফেল কাধে ছুটে চলেছি এপার -উপার বাংলায়।
মুক্তিযুদ্ধাদের নিয়ে এদেশ হানাদার মুক্ত করে, বঙ্গবন্ধুর চরণ তলে রাজকীয় কায়দায় সমর্পন করেছিলাম অগনিত অস্ত্র।
জাতির জনক আমাকে বুকে চেপে ধরে,স্বাধীনতার গন্ধ মেখে দিয়ে বুক ভাসিয়ে ছিলেন।যে দেশ ন,মাস যুদ্ধ করে বাচালাম মা বোনের ইজ্জত,ছিনিয়ে আনলাম স্বাধীনতার পতাকা।রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তুলে ধরলাম এদেশকে বিশ্বের মানচিত্রে।অথচ সেই দেশের কোন স্বার্থনেষী নারকীয় শকুনের পাল, মোদের অর্জিত স্বাধীনতাকে আজ ধুলুন্ঠিত করতে চায়। এদেশের গনতন্ত্র কে ওরা গলাটিপে হত্যা করতে চায়। ওরা কারা?আমি বঙ্গবন্ধুকে ডেকে বলি,হে পিতা জ্বী জমাকৃত অস্ত্র দিয়ে আমাকে আরেকবার পাঠিয়ে দিন।ওদের কলিজার হৃদপৃন্ডকে ঝাঝরা করে দিতে।যে দেশ আমরা যুদ্ধ না করলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না।অথচ ওরা কারা যে স্বাধীনতার বিপক্ষে কথা বলে। ওরা কি তবে পাকসেনাদের দোসর,তবে কি আবার ওদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস বুলেটে ভরে খাইয়ে দিতে হবে ৭১ এর মতো করে। বঙ্গবন্ধু কোন কথা বলেন না -কেবল হেল হেল করে তাকিয়ে রন। আমার মুখেরও পানে।
পিতাজীর চোখের জলে ভিজে আমার ক্ষতবিক্ষত হৃদয়।
কথা ও সুরঃ বজলুর রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     More News Of This Category